Vivekananda – Leo Tolstoy – and – Gandhi

Dr. Sushil Rudra Ph.D

Durgapur Steel City

Vivekananda – Leo Tolstay – and – Gandhi

Vivekananda- Leo Tolstoy- and – Gandhi/image: kalpatarurudra.org/jpg
Vivekananda-Leo Tolstoy – and – Gandhi/image: kalpatarurudra.org/jpg

I am going to express some unknown and untold facts about three most hon’ble men of the world : Vivekananda – Leo Tolstoy – and Gandhi. I have written several articles about Swami Vivekananda in my blog. Even I authored a book on Swami Vivekananda – Bharatchetana and the West and published from Kolkata.

Because this Indian Saint and thinker is our source of strength and energy. Although, these three great personalities of the world – Vivekananda – Leo Tolstoy – and – Gandhi had an enormous impact on the people of India as well as the world.

Though they ruled completely there different sectors, despite they have an intense connection with each other. Eventually, these three – Vivekananda – Tolstoy – Gandhi are the world – thinkers to whom we are indebted.

In course of our lives – journey when we have to face any troubles, Vivekananda gives us strength and light. So repeatedly we consider Vivekananda as our torch- bearer. Today, in this post I will have to focus on them . I’m sure that you will enjoy this post on” Vivekananda – Tolstoy – and – Gandhi “. If you get inspired, please comment.

On June 5, 1908, Leo Tolstoy told D.P.Makovitsky: Since six in the morning I have been thinking of Vivekananda. Yesterday, read Vivekananda the whole day. There is a chapter on the justification of violent means of resisting evil. Very talentedly written.

Again Makovitsky wrote on 26 June 1908:

Yesterday Tolstoy came to the hall with one of Swami Vivekananda’s three volumes. ” Excellent book, so many thoughts are here for the circle of reading”, said Tolstoy.

He further told the awaiting crowd there that these books contain such knowledge that is treasures of true knowwledge. Each and everybody should read and follow it. So it is useful to all and everyone. He also advised his students to translate these books into the Russian language.

But it was uncertain as to how this great Russian writer, Tolstoy became a fan of Swami Vivekananda. We know that Vivekananda wrote a book ” Raja Yoga ” for his American disciples was what impressed Tolstoy first.

As a result, he constantly brought up Swami Vivekananda in his conversations with his students and well-wishers.

Leo Tolstoy is familiar with the doyen of Russian literature. He had a profound philosophical and academic interest in India and Indian philosophy. Tolstoy cast a great influence over Mahatma Gandhi.

But the man who deeply influenced Tolstoy was none other than the young monk of India, Swami Vivekananda.

But it remains still obscure or known in a distorted form is about the relationship between Tolstoy and Swami Vivekanand’s spiritual teacher, the grest Sri Ramkrisna .

He was Tolstoy’s contemporary, one of the most eminent thinkers and social leaders of modern India. Luckily, Swami Vivekananda’s preceptor, Sri Ramakrishna Paramahamsa, held in Tolstoy’s quests of spiritual life in the last years of his life.

  • Some Russian Indologists, like A. I. Shifman, K. Lomunov, E. P. Chelyshev, Professor V. S.Kostyuchenko of Moscow University had tried to explore by their interests about the relation of Tolstoy and India. Especially about Swami Vivekananda.
VIVEKANANDA-TOLSTOY- AND – GANDHI AND INDIA

In India, Tolstoy has been enjoying singular popularity out of love and respect that he is a Rishi. We know that it is an epithet and most Indian use this term for the sages of yore right from the time of the Vedas.

However, the contemporary eminent thinkers and social leaders of modern India, Swami Vivekananda and his preceptor, Sri Ramakrishna Paramahamsa, influenced profoundly this great writer and saint.

Curiously enough, just as much as Tolstoy’s books have had an amazing influence on Indian readers, India had also a strong impact on Tolstoy.

Tolstoy became interested in the thoughts of Vivekananda and Ramakrishna. Therefore, he had several contacts and admirers in India, such as Rabindranath Tagore and Mahatma Gandhi.

From his young age he started reading about Indian thought. Indian ideas, values and ethics had a part in Tolstoy’s philosophy. Moreover, he adapted Indian stories into Russian.

Thus, we have to read Tolstoy’s letters when we’re going to reveal the Tolstoy’s interest in Indian thought.

In the letter, written by Tolstoy in 1908 to a Indian freedom-fighter, Mr. Taraknath Das, following the later’s request for support from Tolstoy for India’s independence, is indicative of the influence of Indian philosophy and religions on Tolstoy.

  • Tolstoy, in his letters, quotes from the Vedas and Upanishads as well as excerpt from Lord Krishna’s teaching. He stresses on the importance of love. Because they only source of freedom from every form of enslavement.
  • He had received the third volume of Vivekananda’s works in early 1909. Within a few months, he requested an editor of a prominent Russian Publishing House that Vivekananda was the most eminent of modern Indian thinkers and his works should be published in Russian.
  • Vivekananda’s speeches mesmerized Tolstoy. Through him, Tolstoy felt about Indian values and ethics, Indian spiritual knowledge.
  • 14 December, 1908, he wrote:
  • In India over 200 million people, highly gifted in both spiritual and physical strength, are under the rule of totally alien small circle of peoples. They are immeasurably lower than those whom they rule.
  • The reason thereof, as seen from your letter… and from extremely interesting works of the Hindu writer, Swami Vivekananda, is the absence of a rational religious doctrine.
  • ( Letter to a Hindu)
Vivekananda – Leo Tolstoy – and -Gandhi /image: www.kalpatarurudra.org/jpg

Even today, 110 years after his death, Leo Tolstoy’s books are the wealth of library. It continues to have a profound influence on thousands of people across the world.

Most book lovers invariably have at least one or two masterpieces of the great Russian writer on their bookshelves – perhaps War and Peace or Anna Karenina.

Prime Minister Modi, addressing an economic forum in Russia said that Leo Tolstoy and Mahatma Gandhi had an “indelible effect” on each other. Therefore, India and Russia must take inspiration from them to strengthen bilateral ties.

But I will say here that it was Swami Vivekananda who tied up with the Russia and India through Tolstoy.

In this respect, we can remember another eminent thinkers of the world. He is Romman Rolland. He translated the most profound and extensive works on Vivekananda and Ramakrishna into the Russian language.

These works have, over the years, been a good source of inspiration not only for the scholars of the subject but also for those who have been interested in modern Indian thought.

Romain Rolland remarks in his translation of Vivekananda’s works( Volume -14, p. 338):

” The religious firmament of India was most brightly illuminated by stars of the first magnitude that had suddenly started shining in it…

…. the two wonders of the spirit: Ramakrishna (1836 – 1886), the godly inspired man who had enveloped all forms of deity with his love, and his pupil, still more powerful than the teacher, Vivekananda (1863 – 1902), whose tempestuous energy had awakened the effective god, the god of Gita in his suffering people, for centuries to come…. Tolstoy, with his vast curious spirit, of course knew about them.”

Rolland further wrote: ” In 1896 he had felt exhilarated to see Vivekananda’s first published works Yoga’s Philosophy and Lectures on Raja Yoga. He was also delighted at Vivekananda’s book on Paramahamsa Sri Ramakrishna.”

In his biography of Vivekananda, Romain Rolland adds that up to June 1895 he had completed the redaction of his famous treatise on Raja Yoga. It was destined to inspire Tolstoy.

But, Rolland continues in his Life of Tolstoy: ‘ the fatal movement of the historical stream took Tolstoy away from the yogis with their terror of God to the threshold of the great work of Vivekananda and Gandhi Hind Swaraj.( Vol.14, p.338).

Vivekananda-Leo Tolstoy – and -Gandhi/image: kalpatarurudra.org/jpg

Howsoever one perceives Tolstoy and his books are inspiring. So there is no doubt that he was a powerful writer, and his books have an enduring appeal. More so, in the time of the ongoing pandemic that has seen sales of his books soar. (https://vivekavani.com)

Curiously enough, just as much as Tolstoy’s books have influenced Indian readers, India also had a strong impact on Tolstoy.

However,he became interested in Indian thought as a young man. So he started reading about it. Indian ideas had a part in Tolstoy’s philosophy, and he adapted Indian stories into Russian.

Later, he also became interested in the thoughts of Vivekananda and Ramakrishna and had several contacts and admirers in India such as Tagore and Gandhi.

The Russian writer and thinker wrote a letter in 1908 to the Indian revolutionary, Taraknath Das. The later’s requested for support from Tolstoy for India’s independence. Practically it is indicative of the influence of Indian philosophy and religions on Tolstoy.

 Leo Tolstoy quotes from the Vedas and the Upanishads. He also excerpts from Lord Krishna’s teachings. He stresses on the importance of love as the only source of freedom from every form of enslavement.

The letter was later passed on to Gandhi. Tarak Nath Das translated it from Russian and published it in an Indian newspaper,” Free Hindustan”.

The letter was then published in the form of a slim book titled Letter to a Hindu with a foreword by Gandhi. Thus, began a series of correspondence between the two.(name – fame.com) / keepsmiling.com

 “I read your book with great interest,” Tolstoy later wrote of Gandhi’s Hind Swaraj (“Indian Home Rule”). “because I think that the question you treat in it – passive resistance – is a question of the greatest importance not only for India but for the whole of humanity.”

In early 1909, Tolstoy had received the third volume of Vivekananda’s works. Of course, within a few months, he told an editor of a prominent Russian publishing house that Vivekananda was the most eminent of modern Indian thinkers. Therefore it is necessary to publish his works in Russian.

VIVEKANANDA- TOLSTOY – and GANDHI (https://www.swamivivekananda.guru)

Mahatma Gandhi and Tolstoy exchanged seven letters in 1909-10. Tolstoy was one of the sources of inspiration for Gandhi’s philosophy of non-violence.

Hence, Tolstoy has inspired Gandhi. He was greatly influenced by Tolstoy’s book “The Kingdom of God is Within You” and his essay on Christianity and Patriotism.

Tolstoy’s ideal of the simplicity of life and purity of purpose influenced Gandhi deeply. Therefore, no wonder, when he started an ashram on a 1,000-acre farm in Johannesburg in 1910, he named it Tolstoy Farm. Gandhi made this farm for his Satyagraha campaign to protest discrimination against India .

Meanwhile, Tolstoy’s literary output as well as the philosophy of his later years became popular reading in India. Mainly it was through English translations. Moreover, it was through Indian languages. 

Noted litterateur D Javare Gowda has translated at least three major works of Tolstoy into Kannada.

The reasons may differ. Yet most readers will agree with the assessment of British poet Matthew Arnold that “a novel by Tolstoy is not a work of art but a piece of life.”

To end, a memorable line from Tolstoy: “We can only know that we know nothing. And that is the highest degree of human wisdom.”

Read more:SWAMI VIVEKANANDA ON NARADA-BAKTI-SUTRA.

Rabindranath as a Singer, Musician & Lyricist

Rabindranath as a Singer, Musician & Lyricist

Dr Sushil Rudra

Durgapur Steel City, India

Rabindranath as a singer, musician and lyricist /image:kalpatarurudra.org/jpg

Rabindranath was certainly a polymath. He is regarded as Kobiguru or Viswakabi. Mahatma Gandhi named him Gurudev. But he is less familiar as a singer, musician and lyricist. Rabindranath as a great singer, musician and lyricist is undoubtedly outstanding and extraordinary.

From his childhood, he was famous for singing music. Here in this post, I will try to depict the talent of Rabindranath as a Singer, musician and lyricist.

Tagore wanted to know the world through his songs and music. He wrote a famous lyric: ” Ganer Bhitar diye Jakhon Dekhi Bhuban Khani / Takhon tare jani, Takhon tare cini.”

That means, when I see the world through the song, then it reveals to me and I become acquainted with this world. Once he told about his singing aptitude: When I have started singing, I couldn’t recollect in memory.

Song Offerings is often identified as the English rendering of Gitanjali ( Bengali: গীতাঞ্জলি), a volume of poetry by poet Rabindranath Thakur. He composed these lyrics in between 1904 and 1910 and published in 1910.

However, Song -Offerings anthologizes the English translation of poems from his drama Achalayatan and nine other previously published volumes of Tagore poetry. The ten works, and the number of poems selected from each, are as follows:

  • Gitanjali – 69 poems (out of 157 poems in )
  • Geetmalya – 17 poems
  • Naibadya – 16 poems
  • Kheya – 11 poems
  • Shishu – 3 poems
  • Chaitali – 1 poem
  • Smaran – 1 poem
  • Kalpana – 1 poem
  • Utsarga – 1 poem
  • Acholayatan – 1 poem

Song Offerings is a collection of devotional songs to the supreme. The deep-rooted spiritual essence of the volume is brought out from the following extract :


My debts are large,
my failures great,
my shame secret and heavy;
yet I come to ask for my good,
I quake in fear lest my prayer is granted.
(Poem 28, Song Offering)

The word gitanjali is composed from “geet”, song, and “anjali”, offering, and thus means – “An offering of songs”; but the word for offering, anjali, has a strong devotional connotation. So the title may also be interpreted as “prayer offering of song”.

Nature of translation: Rabindranath as a singer, musician and lyricist –

Rabindranath Tagore took the liberty of doing “free translation” while rendering these 103 poems into English. Consequently, in many cases these are transcreations rather than translation. However, literary biographer, Edward Thomson found them ‘perfect’ and ‘enjoyable’.

Eventually, a reader can himself realise the approach taken by Rabindranath in translating his poem with that translated by a professional translator. First is quoted lyric no. 1 of Song Offering as translated by Rabindranath himself :

Thou hast made me endless, such is thy pleasure.
This frail vessel thou emptiest again and again,
and fillest it ever with fresh life.

This little flute of a reed thou hast carried over hills and dales, and hast breathed through it melodies eternally new.
At the immortal touch of thy hands
my little heart loses its limits in joy and gives birth to utterance ineffable.

Thy infinite gifts come to me only on these very small hands of mine.
Ages pass, and still thou pourest, and still, there is room to fill.

It is the Lyric number 1 of Gitanjali. There is another English rendering of the same poem by Joe Winter  translated in 1997:

Rabindranath undertook the translations prior to a visit to England in 1912, where the poems were extremely well received. In 1913, he became the first non-European to win the Nobel Prize  for Literature, largely for the English  Gitanjali.

Publications: Rabindranath as a singer-musician and lyricist

The first edition of Song Offerings was published in 1912 from London by the India Society. It was priced ten and a half shillings. The second edition was published by The Macmillan Company in 1913 and was priced at four and a half shillings.


The second edition contained a sketch of the poet by Rothenstine
, in addition to an invaluable preface by W.B.Yeats.

Introduction by Yeats

Rabindranath as singer, musician and lyricist/image: http://kalpatarurudra.org/jpg

W.B. Yeats in 1908

An introduction by poet W.B.Yeats  was added to the second edition of Song Offerings. Yeats wrote that this volume had “stirred my blood as nothing has for years. . . .” He candidly informed the readers,

“I have carried the manuscript of these translations about with me for days, reading it in railway trains, or on the top of omnibuses and in restaurants, and I have often had to close it lest some stranger would see how much it moved me.

These lyrics–which are in the original, my Indians tell me, full of subtlety of rhythm, of untranslatable delicacies of colour, of metrical invention—display in their thought a world I have dreamed of all my live long.”

Then, after describing the Indian culture which considered an important facilitating factor behind the sublime poetry of Rabindranath, Yeats stated,

“The work of a supreme culture, they yet appear as much the growth of the common soil as the grass and the rushes. A tradition, where poetry and religion are the same thing, has passed through the centuries, gathering from learned and unlearned metaphor and emotion, and carried back again to the multitude the thought of the scholar and of the noble.”

Nobel Prize in 1913

In 1913, Rabindranath Tagore was awarded the prestigious Nobel Prize  for literature. Evaluation of Tagore as a great poet was based mainly on the evaluation of Song Offerings, in addition to the recommendations that put his name on the short list. In awarding the prize to Rabindranth, the Nobel committee stated:

“because of his profoundly sensitive, fresh and beautiful verse, by which, with consummate skill, he has made his poetic thought, expressed in his own English words, a part of the literature of the West”.

 The Nobel committee comprehended him as “an author who, in conformity with the express wording of Alfred Nobel’s last will, had during the current year, written the finest poems of an idealistic tendency.” 

Therefore, the Nobel Committee finally quoted from Song Offering and stated that Rabindranath in thought-impelling pictures, has shown how all things temporal are swallowed up in the eternal:

Time is endless in thy hands, my lord.
There is none to count thy minutes.
Days and nights pass and ages bloom and fade like flowers.
Thou knowest how to wait.
Thy centuries follow each other perfecting a small wild flower.
We have no time to lose, and having no time, we must scramble for our chances.
We are too poor to be late.
And thus it is that time goes by,
while I give it to every querulous man who claims it,
and thine altar is empty of all offerings to the last.
At the end of the day I hasten in fear lest thy gate be shut;
but if I find that yet there is time.
(Gitanjali, No. 82)

In response to the announcement of the Nobel prize, Rabindranath sent a telegram saying,

“I beg to convey to the Swedish Academy my grateful appreciation of the breadth of understanding which has brought the distant near, and has made a stranger a brother.”

Hence, this was read out Mr. Clive, the-then British Chargé d’Affaires (CDA) in Sweden, at the Nobel Banquet at Grand Hôtel, Stockholm, on 10 December 1913.

Finally eight years after the Nobel Prize was awarded, Rabindranath went to Sweden in 1921 to give his acceptance speech.

Did Nobel Committee read only Gitanjali?

The answer is in brief ” No “. Before 1912, Tagore composed his best anthology of poems( Manasi, Chitra, Chaitali, Kheya, and novels Chokher Bali, Ghare Baire[Home and The World], Gora, Short Stories, lyrics, Gitanjali, Gitimalya, Gitali etc.).

As a poet, writer, Philosopher, Humanist and patriot, – Tagore was then famous. So he had translated his poems. Besides, some other ( Poet & Tagore friend Amiya Chakravorty ) close friends of Rabindranath Translated Togore writings in English.

Therefore, the members of the Nobel Committee might read his writings in translation.

#Tagore as a Singer, musician and musician

Read also: The First Love Of Rabindranath Thakur

SLEEP WELL IS ALL WELL

Dr. Sushil Rudra

Durgapur Steel City, India

sleepy woman having rest near window
Photo by Kalpatarurudra.org/ Pexels.com / Sleep well is All well/jpg

Our source of energy is sound sleep. There is a saying that sleep well is all well. But we sometimes in our lives have to face its deprivation.

Perhaps we become worried due to our health or someone near to us. There may be anxious to have materialistic happiness, but couldn’t accomplish it. So the mind is worried.

Mainly anxiety is the root of insomnia. A haphazard lifestyle might cause insomnia . So we can try to know about the need of napping and sleeping .

WHAT IS SLEEP?

” Abhava-pratyaya- alambana-vritti Nidra”

Sleep is a modification of the mind which has the cause of nothingness as its support. ( Yoga Sutra – Samadhipada ) It manifests when there is a preponderance of Tamas.

During sleep, Sattva and Rajas subside and there will be no knowledge of the external world. Some Jogis think that there is a vritti shunya in it . But it’s not so.

As there is memory in us when we wake up and say that we slept soundly. We knew nothing. There ought to have been a particular kind of subtle wave in the mind during sleep.

Hence, it should not be understood that sleep is no transformation or vritti of the mind. If it were so, the remembrance: ” We slept well or I slept well” would not follow on waking, for we never remember what we haven’t experienced.

• IT IS THE TONIC OF LIFE:

The best elixir and tonic of life is sleep. So it is nature’s tonic to refresh the exhausted body and mind. It is a state in which the mind rests peacefully. They gets involved into its cause. The vrittis and Vasanas( desires) become dormant or latent. It ceases all its functions.

Therefore, the restless wandering mind gets rest. It’s a natural way of charging the mind with fresh energy and peace by allowing it to rest in its source. Hence, there is a temporary absorption of the mind in its cause during sleep.

An Indian yogi told in this regard that in sleep there is deep Tamas. Tamas overpowers Sattva and Rajas. Udana Vayu draws the Jiva from the waking state and makes it rest in Anandamaya Kosha or causal body.

Eventually, after a deep sleep we enjoy happiness and calm of mind. Get massive energy. Hence, our mind becomes charged with affluent energies.

So it is a Tamasic state. Because there is neither activity nor awareness. So the sleeping man is unconscious of the world outside. Even he has no consciousness of his being asleep.

But it’s a matter of pleasure that during sleep the mind and body change. So the body, mind and nerves become vitalised and rendered fit for new activities.

Therefore, man feels happiness, peace and also gets freedom from all pains and agony in sleep. Ultimately, it is essential to keep the body and mind healthy and sound.

So without perfect sleep, we can not enjoy sound health of body, mind and nerves. It refreshes and tones the brain and the nerves. As a result, it is a balm that soothes the fatigue nerves and brains. Hence, It energises and vivifies the whole body and mind.

NEED OF RELAXATION FOR HEALTHY BODY AND MIND:

The mind and body need relaxation after the lapse of a particular time or after every series of actions done by the physical brain and mental bodies and therefore, a sick man is unable to get rest due to his ailments.

But if he gets the sleep, obviously he is much relieved. Naturally, lack of sleep intensifies the disease. Therefore, the patient feels then as if his disease is aggravated due to insomnia.

Moreover, sleeplessness itself is a disease. So sleep is indispensable to all.

Read more: RAJA YOGA AS DEFINED BY SWAMI VIVEKANANDA

Swami Vivekananda’s Mission To West

Swami Vivekananda, the great Hindu monk went to America to preach Vedanta in 1893. Many of his followers inspired him by seeing his divine power the West. Moreover, they helped him financially. This financial help of some Rajas of India and also by some common people made it possible to visit America where he got massive success.

He was then only 30, a young saint but extraordinarily talented. Moreover, he was highly literate and good orator. Naturally, Vivekananda mesmerised the spectators at his debut lecture at Chicago World’s Parliament of Religions. So Swami Vivekananda’s mission to the West since then started there.

Swami Vivekananda’s Mission To the West:

Swami Vivekananda’s mission to the West/image:http://kalpatarurudra.org/jpg

Swami Vivekananda was the first missionary to the West from India, and he taught Indian philosophy to the people of the West. Eventually, It was entirely new to them. Despite they had accumulated this subject.

Vivekananda has boldly undertaken to visit the Western World to expound the traditional teaching. Mainly Yogis of ancient India handed down by ascetics through many ages. And fortunately, Swamiji delivered a bunch of lectures in pursuance of this object.

Swami Vivekananda had a deep interest in religion and philosophy from his childhood. And the old scriptures of ancient India teach him renunciation as the highest ideal to which man can aspire.

His guru, Sri Ramkrishna was a great teacher. Paramhamsa Ji kindled the light within him and directed Vivekananda to follow that path he himself had trod. As a result, we can say that Swami Ji found the highest ideal realised from his Teacher.

Being asked about his attitude towards Western religions, Vivekananda replied:

” I propound a philosophy which can serve as a basis to every possible religious system in the world. My attitude towards all of them is one of extreme sympathy. – my teaching is antagonistic to none.”

Vivekananda directed his attention to the individual. So he wanted to strengthen man, and to teach men that they are divine. He called upon men to make themselves conscious of this divinity within. This is the ideal – conscious or unconscious – of every religion.

WHAT WAS HIS TEACHING?

The central teaching of Vivekananda was to convey a definite idea to call it the kernel of all forms of religion, stripping from them the non – essential, and laying stress on that which is the real basis.

Indeed, he never assumed the negative or critical attitude towards other religions but showed their positive side – how they could be carried into life and practised.

Hence, to fight, to assume the antagonistic attitude, is the exact contrary of his teachings, which dwells on the truth that the world is moved by love.

ABOUT HINDU & HINDUISM: SWAMI VIVEKANANDA’S MISSION TO THE WEST

He was critical of all religions and faiths. He told about the Hindu, the Mohammedan, the Jains and the Christian. According to Swamiji, the Hindu religion never persecutes. India is a land where all sects may live in peace and amity.

The Mohammedan brought murder and slaughter in their train, but until their arrival peace prevailed.

Read More:SWAMI VIVEKANANDA: THE WORLD TEACHER

The Jains don’t believe in a God. Moreover, They regard such belief as a delusion, we’re tolerated and still are there today.

Therefore, India sets the example of real strength, that is meekness. Dash, pluck, fight, all these things are weakness.

“নাচুক তাহাতে শ্যামা” ( Nachuk Tahate Shyama)

NACHUK TAHATE SHYAMA

আমরা ইতোপূর্বে স্বামী বিবেকানন্দের আলোচ্য “নাচুক তাহাতে শ্যামা” কবিতাটির  ইংরেজি অনুবাদ “এ্যন্ড লেট শ্যামা ডান্স দেয়ার ” সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেছি । আজ আমরা মূল বাংলা কবিতাটি  নিয়ে কিছু কথা পাঠকদের সামনে তুলে ধরতে চেষ্টা করবো।    স্বামীজির বাংলা ভাষায় লেখা কবিতা বা গদ্য রচনা খুব কম । আর যেটুকু লিখেছেন , তা তাঁর গভীর জীবনবোধ ও মানবপ্রীতির উৎস থেকেই উৎসারিত । কবিতা লিখবো বলে কবিতা লেখা, তেমন ভাবনা বা সময় স্বামীজির ছিল না। বলা যেতে পারে চর্যাপদের কবিদের মতো তিনি ছিলেন সাধক কবি। সাধনার গভীর অনুভব তাঁর কবিতায় বিচ্ছুরিত। জগৎ ও জীবনের সত্যরূপ স্বাভাবিক ভাবেই স্বামীজি র কবিতায় মূল বিষয় নিয়ে হাজির হয়েছে ।স্বামীানন্দের প্রিয় কবি ছিলেন মাইকেল মধুসূদন দত্ত, যিনি বাংলা সাহিত্যে প্রথম আধুনিকতার সৃষ্টি করে বাঙালি পাঠককে নতুন দিগন্তের সন্ধান দিয়েছিলেন। বীর ও করুন রসের মিশ্রণে বাংলা সাহিত্যের একমাত্র সাহিত্যিক মহাকাব্য তিনি আমাদের উপহার দিয়েছেন। পাশাপাশি গীতিরসের মূর্ছনাও তাঁর কবিতায় এক অপরূপ সৌন্দর্য সৃষ্টি করে পাঠককে অভিভূত করে। স্বামী বিবেকানন্দ প্রায়শ- ই তাঁর প্রিয় কবি মধুসূদন দত্তের কবিতা আবৃত্তি করতেন গুরুগম্ভীর কন্ঠে।

সন্ন্যাসীনি তাঁর আবেগ অনুভূতিকে ইংরেজি ও বাংলা ভাষায় কবিতা লিখে প্রকাশ করেছেন। সংখ্যায় কম হলেও সেসব কবিতা বাংলা ও ইংরেজি সাহিত্যের সম্পদ । ইতোপূর্বে তাঁর ইংরেজি কবিতা ” কালী দ্য মাদার ” (      ‌‌) কবিতা সম্পর্কে বিস্তৃত আলোচনা করেছি । আজ আমরা স্বামীজির ” নাচুক তাহাতে শ্যামা ” বাংলা কবিতাটি সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করবো যার ইংরেজি ভার্সনের ব্যাখ্যা আগের পোস্ট – এ করেছি । বলাবাহুল্য ইংরেজি অনুবাদটি স্বামী জি নিজেই করেছিলেন।এ প্রসঙ্গে বলে রাখা ভালো যে, নিবেদিতার কালী সম্পর্কে ধারনা স্বামীজির কাছ থেকেই অন্বিষ্ট হয়েছিল। স্বামী বিবেকানন্দ এ সম্পর্কে তাঁকে প্রভাবিত করেছিলেন বলা অযৌক্তিক হবে না। আমরা পরে নিবেদিতার কালী সম্পর্কে ধারনা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করবো। তিনি কালী সম্পর্কে একটি বক্তৃতা দিয়েছিলেন, মা তাঁর রচনাবলীর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। ” নাচুক তাহাতে শ্যামা ”  কবিতাটি ১৯০৪ খিষ্টাব্দে  ‘ বিবেকোদয়ম্ ‘ পত্রিকায় দুই পর্বে প্রথম প্রকাশিত হয়। পরবর্তীকালে” দ্য কমপ্লিট ওয়ার্কস্ অফ্ স্বামী বিবেকানন্দ ”  গ্ৰন্থের দ্বিতীয় খণ্ড – এ কবিতাটির ইংরেজি অনুবাদটি প্রকাশিত হয়। বাাংলা  স্বামী বিবেকানন্দের বাণী ও রচনা গ্ৰন্থের ষষ্ঠ খন্ডে মূল বাংলা কবিতাটি প্রকাাশিত  হয় । শ্যামা বা কাালীর প্রতি আত্মনিবেদন প্রকাশিত হয়েছে এই কবিতায় । কবির্মনিষী বিবেকানন্দ অসাধারণ মুন্সিয়ানায় প্রকৃতির পটভূমিকায় মানবমনের স্বরূপটিকে তুলে ধরতে চেয়েছেন। এবং এই প্রসঙ্গে বিশ্বজননী কালীর স্বরূপটিকেও ব্যক্ত করেছেন। দুঃখ – যন্ত্রনা – মৃত্যর অন্ধকারের মধ্য দিয়েই যে জীবনসংগ্রাম সেকথাও কবি বিবেকানন্দ বলতে চেয়েছেন। আমরা সাধারণত সহজ স্বাভাবিক আনন্দঘন জীবনযাত্রা আকাঙ্ক্ষা করি । কিন্তু সন্ন্যাসী-কবি সহজ জীবনের আবেদনকে প্রত্যাখ্যান করে জীবনের কঠিন সমস্যাগুলির মুখোমুখি হয়ে সেগুলির সমাধানের মাধ্যমে জীবনের সুখ ও শান্তি আনার কথা বলেছেন।সর্বমোট পাঁচটি স্তবকে প্রলয়ঙ্করী বা ভয়ঙ্করী মায়ের স্বরূপটিকে তুলে ধরতে চেয়েছেন। প্রথম স্তবকে প্রকৃতির স্নিগ্ধ শ্যামল শোভন রূপের অসাধারণ বর্ণনা । —“ফুল্ল ফুল সৌরভে আকূল মত্ত অলিকূল / গুঞ্জরিছে আশে পাশে/ শুভ্র শশী যেন হাসিরাশি , মত স্বর্গ বাসী / বিতরিছে ধরাবাসে ।।বেশ কয়েকটি চরণে প্রকৃতির অপরূপ সৌন্দর্যকে বাণীরূপ দিয়েছেন অসাধারণ উপমার পর উপমা সাজিয়ে। মলয়-পবন , নদনদী যেন হাসিরাশি , ফেনময়ী নির্ঝরণী , স্বরময় পতত্রিনিশয় শোনায় সোহাগ বাণী , চিত্রকর তরুণ ভাস্কর , স্বর্ণতুলিকর ছোঁয় মাত্র ধরাপটে – প্রভৃতি শব্দচিত্র বা বাকপ্রতিমা ব্যবহার করে প্রকৃতি মায়ের সুন্দর রূপের বর্ণনা দিয়েছেন।দ্বিতীয় কবি প্রকৃতির স্নিগ্ধ রূপের ঠিক বিপরীত চিত্র এঁকেছেন। প্রকৃতির এমন ভয়াল চিত্র এঁকে তিনি জীবনের ও প্রকৃতি মায়ের ভয়ংকর দিকের ইংগিত দিয়েছেন। অন্ধকার উগরে আঁধার, হুহুঙ্কার শ্বসিছে প্রলয়বায়ু , রক্তকায় করার বিজলীজ্বালা , ফেনময় গর্জি মহাকায় , উর্মিধায় লঙ্ঘিতে পর্বতচূড়া, ঘোষে ভীম গম্ভীর ভূতল –  প্রভৃতি চিত্রকল্প ব্যবহার করে কবি প্রকৃতির ভয়ংকরী স্বরূপটিকে কাব্যরূপ দিয়েছেন। শুধু বসন্ত মলয় বায়ু নয়, প্রকৃতির রক্তকায় মহাকালী রূপটিকেও কবি দেখিয়েছেন, সাধারণত আমরা সচরাচর ভাবি না। প্রথম ও দ্বিতীয় স্তবক দুটিতে প্রকৃতির দুই ভিন্নরূপ এঁকে কবি বস্তুত বলতে চেয়েছেন – জীবনসাধনার পথে এই প্রলয়ঙ্করী জীবনপথ ধরেই সত্য সুন্দর ও জীবনানন্দ পেতে হবে। ভয়ংকর পরিবেশে শ্যামা তাঁর প্রলয়ঙ্করী নাচটি নাচেন । উল্লেখ্য, এখানে কবি একটি দৃশ্যময় বর্ণনা ও সাংকেতিক প্রতিকের সাহায্যে আমাদের সামনে জগৎ ও জীবনের এই বিশেষ সত্যটি তুলে ধরেছেন। 

তৃতীয় স্তবকে আবার স্নিগ্ধ সুমধুর চিত্র । শোভাময় মন্দির – বাড়িঘর , নীলাভ হ্রদ , সেখানে বিচরণশীল কুবলয় শ্রেণী, শ্রুতিপথে বীণার ঝঙ্কার , বাসনা বিস্তার , রাগ – অভিমান, ব্রজের লীলা , গোপীদের তপ্তশ্বাসযুক্ত অশ্রুরাশি , নীলোৎপল দুটি আঁখি , ইত্যাদি শব্দবন্ধের মধ্য দিয়ে জীবনের রোমান্টিক দিকটি প্রকাশিত। প্রমময় জীবনের এমন চিত্র অসাধারণ মুন্সীয়ানায় ফুটিয়ে তোলার কারন এই যে , মানুষ সাধারণত এমন জীবনেরই স্বপ্ন দেখে। কিন্তু মানুষের জীবন সংগ্রাম ময়।  চতুর্থ স্তবকটির দৈর্ঘ্য অন্যান্য স্তবকের তুলনায় অনেকটাই বড় । ২৪ টি পংক্তি তথা ৪৮ টি চরণবিশিষ্ট। তৃতীয় স্তবকের ঠিক বিপরীত ভাব ও রসের কথা এখানে চিত্রিত। প্রকৃতি মায়ের ভয়াল রূপের বর্ণনা। যুদ্ধের দামামা বাজিয়ে শ্যামা মায়ের আগমন। ” ডাকে ভেরী, দামামা, বীর দাপে কাঁপে ধরা , বব- বব ব্ম্ তোপ , ভীম রণস্থল , পৃত্থিতল কাঁপে থরথর, ঝরে রক্তধারা , বীরমদে মাতোয়ারা – প্রভৃতি শব্দচিত্র দিয়ে জীবনের কঠিন রূঢ় ভয়াল রুদ্র রূপটি উপস্থাপিত করেছেন। পাশাপাশি আমাদের মনের স্বপ্ন – সুখ – আকাঙ্ক্ষা ইত্যাদি সহজ সরল স্বাভাবিক চাহিদাগুলোর কথাও ব্যক্ত করেছেন। অসাধারন কাব্যময়তায় সন্ত কবি বর্ণনা করেছেন : 

” দেহ চায় সুখের সঙ্গম, চিত্ত – বিহঙ্গম সঙ্গীত – /  সুধার ধার । / মন চায় হাসির হিন্দোল , প্রাণ সদা রোল রাইতে ,/ দুঃখের পার ।। ” মানুষের স্বাভাবিক মানসিক স্বরূপটিকে কবি গভীরভাবে নির্দেশ করেছেন –  ” সুখের জন্য সবাই কাতর , কেবা সে পামর দুঃখে / যার ভালবাসা ? ” শত দুঃখের মধ্যেও মানুষ আশার – মরীচিকায় ঘুরে মরে। কেউ চায় না মৃত্যুরূপী এলোকেশী – কে। ” রুদ্রমুখে সবাই ডরায় ” – একথা কবি বলেছেন। কিন্তু সন্ন্যাসী-কবি মৃত্যু- রূপা কালী বা প্রকৃতিকেই আহ্বান জানিয়েছেন – ” সত্য তুমি মৃত্যরূপা কালী , সুখ বনমালী তোমার / মায়ার ছায়া । / করালিনি , কর মর্মচ্ছেদ , হোক মায়াভেদ , / সুখস্বপ্ন দেহে দয়া ।। মৃত্যু , রোগ , মহামারী – রূপী এ জগৎ মায়েরই দান । তাই মা দানবজয়ীও । ” মৃত্যু তুমি , রোগ মহামারী বিষকুম্ভ ভরি , বিতরিছ /জনে জনে “

।। শেষ স্তবক খুবই তাৎপর্যপূর্ণ । ভয়ংক পরিবেশেই শ্যামা তাঁর প্রলয়ঙ্করী নাচটি নাচেন। তিনি সকল অবস্থার নিয়ন্ত্রক । শ্যামা ভালো – মন্দ , শান্ত – ভয়ংকর – এই উভয় অবস্থার -ই নিয়ন্ত্রক । সুতরাং বীর হৃদয়ের পূজা সংগ্ৰামের মধ্য দিয়েই – “ পূজা তাঁর সংগ্ৰাম  অপার , সদা পরাজয় তাহা না / ডরাক তোমা / চূর্ণ হোক স্বার্থ সাধ মান , হৃদয় শ্মশান / নাচুক তাহাতে শ্যামা ” ।।মহৎ জীবনের সাধনা মসৃন নয়। দূর্গম পথ চলা তার সাথী । সাধারণ জীবনচর্যা  সাধকের জীবন নয় । কঠিন, দুর্গম পথ ধরেই তাকে চলা । মহৎ জীবনের সাধনা সংগ্ৰাম মুখর । সংগ্ৰাম     

Nachuk Tahate Shyama/image:http://kalpatarurudra.org/jpg

Nachuk Tahate Shyama/স্বামী বিবেকানন্দের কবিতা ( স্ব-অনুদিত )নাচুক তাহাতে শ্যামা

 আকুল, মত্ত অলিকুল গুঞ্জরিছে আশে পাশে।
শুভ্র শশী যেন হাসিরাশি, যত স্বর্গবাসী বিতরিছে ধরাবাসে॥

Nachuk Tahate Shyama:


মৃদুমন্দ মলয়পবন, যার পরশন, স্মৃতিপট দেয় খুলে।
নদী, নদ, সরসী-হিল্লোল, ভ্রমর চঞ্চল, কত বা কমল দোলে॥


ফেনময়ী ঝরে নির্ঝরিণী—তানতরঙ্গিণী—গুহা দেয় প্রতিধ্বনি।
স্বরময় পতত্রিনিচয়, লুকায়ে পাতায়, শুনায় সোহাগবাণী॥


চিত্রকর, তরুণ ভাস্কর, স্বর্ণতুলিকর, ছোঁয় মাত্র ধরাপটে।
বর্ণখেলা ধরাতল ছায়, রাগপরিচয় ভাবরাশি জেগে ওঠে॥

মেঘমন্দ্র কুলিশ-নিস্বন, মহারণ, ভুলোক-দ্যুলোক-ব্যাপী।
অন্ধকার উগরে আঁধার, হুহুঙ্কার শ্বসিছে প্রলয়বায়ু॥
ঝলকি ঝলকি তাহে ভায়, রক্তকায় করাল বিজলীজ্বালা।
ফেনময় গর্জি মহাকায়, ঊর্মি ধায় লঙ্ঘিতে পর্বতচূড়া॥
ঘোষে ভীম গম্ভীর ভূতল, টলমল রসাতল যায় ধরা।
পৃথ্বীচ্ছেদি উঠিছে অনল, মহাচল চূর্ণ হয়ে যায় বেগে॥

শোভাময় মন্দির-আলয়, হ্রদে নীল পয়, তাহে কুবলয়শ্রেণী।
দ্রাক্ষাফল-হৃদয়-রুধির, ফেনশুভ্রশির, বলে মৃদু মৃদু বাণী॥
শ্রুতিপথে বীণার ঝঙ্কার, বাসনা বিস্তার, রাগ তাল মান লয়ে।
কতমত ব্রজের উচ্ছ্বাস, গোপী-তপ্তশ্বাস, অশ্রুরাশি পড়ে বয়ে॥
বিম্বফল যুবতী-অধর, ভাবের সাগর—নীলোৎপল দুটি আঁখি।
দুটি কর—বাঞ্ছাঅগ্রসর, প্রেমের পিঞ্জর, তাহে বাঁধা প্রাণপাখী॥

ডাকে ভেরী, বাজে ঝর‍্‍র্ ঝর‍্‍র্ দামামা নক্কাড়, বীর দাপে কাঁপে ধরা।
ঘোষে তোপ বব-বব-বম্, বব-বব-বম্ বন্দুকের কড়কড়া॥
ধূমে ধূমে ভীম রণস্থল, গরজি অনল বমে শত জ্বালামুখী।
ফাটে গোলা লাগে বুকে গায়, কোথা উড়ে যায় আসোয়ার ঘোড়া হাতী॥
পৃথ্বীতল কাঁপে থরথর, লক্ষ অশ্ববরপৃষ্ঠে বীর ঝাঁকে রণে।
ভেদি ধূম গোলাবরিষণ গুলি স্বন্ স্বন্, শত্রুতোপ আনে ছিনে॥
আগে যায় বীর্য-পরিচয় পতাকা-নিচয়, দণ্ডে ঝরে রক্তধারা।
সঙ্গে সঙ্গে পদাতিকদল, বন্দুক প্রবল, বীরমদে মাতোয়ারা॥


ঐ পড়ে বীর ধ্বজাধারী, অন্য বীর তারি ধ্বজা লয়ে আগে চলে।
তলে তার ঢের হয়ে যায় মৃত বীরকায়, তবু পিছে নাহি টলে॥
দেহ চায় সুখের সঙ্গম, চিত্ত-বিহঙ্গম সঙ্গীত-সুধার ধার।
মন চায় হাসির হিন্দোল, প্রাণ সদা লোল যাইতে দুঃখের পার॥
ছাড়ি হিম শশাঙ্কচ্ছটায়, কেবা বল চায়, মধ্যাহ্নপতন-জ্বালা।
প্রাণ যার চণ্ড দিবাকর, স্নিগ্ধ শশধর, সেও তবু লাগে ভাল॥
সুখতরে সবাই কাতর, কেবা সে পামর দুঃখে যার ভালবাসা?
সুখে দুঃখ, অমৃতে গরল, কণ্ঠে হলাহল, তবু নাহি ছাড়ে আশা॥


রুদ্রমুখে সবাই ডরায়, কেহ নাহি চায় মৃত্যুরূপা এলোকেশী।
উষ্ণধার, রুধির-উদ্গার, ভীম তরবার খসাইয়ে দেয় বাঁশী॥
সত্য তুমি মৃত্যরূপা কালী, সুখবনমালী তোমার মায়ার ছায়া।
করালিনি, কর মর্মচ্ছেদ, হোক মায়াভেদ, সুখস্বপ্ন দেহে দয়া॥
মুণ্ডমালা পরায়ে তোমায়, ভয়ে ফিরে চায়, নাম দেয় দয়াময়ী।
প্রাণ কাঁপে, ভীম অট্টহাস, নগ্ন দিক‍্‍বাস, বলে মা দানবজয়ী॥
মুখে বলে দেখিবে তোমায়, আসিলে সময় কোথা যায় কেবা জানে।
মৃত্যু তুমি, রোগ মহামারী বিষকুম্ভ ভরি, বিতরিছ জনে জনে॥

হে উন্মাদ, আপনা ভুলাও, ফিরে নাহি চাও, পাছে দেখ ভয়ঙ্করা।
দুখ চাও, সুখ হবে বলে, ভক্তিপূজাছলে স্বার্থ-সিদ্ধি মনে ভরা॥
ছাগকণ্ঠ রুধিরের ধার, ভয়ের সঞ্চার, দেখে তোর হিয়া কাঁপে।
কাপুরুষ! দয়ার আধার! ধন্য ব্যবহার! মর্মকথা বলি কাকে?
ভাঙ্গ বীণা—প্রেমসুধাপান, মহা আকর্ষণ—দূর কর নারীমায়া।
আগুয়ান, সিন্ধুরোলে গান, অশ্রুজলপান, প্রাণপণ, যাক্ কায়া॥


জাগো বীর, ঘুচায়ে স্বপন, শিয়রে শমন, ভয় কি তোমার সাজে?
দুঃখভার, এ ভব-ঈশ্বর, মন্দির তাহার প্রেতভূমি চিতামাঝে॥
পূজা তাঁর সংগ্রাম অপার, সদা পরাজয় তাহা না ডরাক তোমা।
চূর্ণ হোক স্বার্থ সাধ মান, হৃদয় শ্মশান, নাচুক তাহাতে শ্যামা. 

Nachuk Tahate Shyama/image: http://kalpatarurudra.org/jpg

আমরা ইতোপূর্বে স্বামী বিবেকানন্দের আলোচ্য “নাচুক তাহাতে শ্যামা” কবিতাটির  ইংরেজি অনুবাদ “এ্যন্ড লেট শ্যামা ডান্স দেয়ার ” সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেছি । আজ আমরা মূল বাংলা কবিতাটি  নিয়ে কিছু কথা পাঠকদের সামনে তুলে ধরতে চেষ্টা করবো।    

স্বামীজির বাংলা ভাষায় লেখা কবিতা বা গদ্য রচনা খুব কম । আর যেটুকু লিখেছেন , তা তাঁর গভীর জীবনবোধ ও মানবপ্রীতির উৎস থেকেই উৎসারিত ।

কবিতা লিখবো বলে কবিতা লেখা, তেমন ভাবনা বা সময় স্বামীজির ছিল না। বলা যেতে পারে চর্যাপদের কবিদের মতো তিনি ছিলেন সাধক কবি। সাধনার গভীর অনুভব তাঁর কবিতায় বিচ্ছুরিত। জগৎ ও জীবনের সত্যরূপ স্বাভাবিক ভাবেই স্বামীজি র কবিতায় মূল বিষয় নিয়ে হাজির হয়েছে ।

স্বামী বিবেকানন্ন্দের প্রিয় কবি ছিলেন মাইকেল মধুসূদন দত্ত, যিনি বাংলা সাহিত্যে প্রথম আধুনিকতার সৃষ্টি করে বাঙালি পাঠককে নতুন দিগন্তের সন্ধান দিয়েছিলেন। বীর ও করুন রসের মিশ্রণে বাংলা সাহিত্যের একমাত্র সাহিত্যিক মহাকাব্য তিনি আমাদের উপহার দিয়েছেন।

পাশাপাশি গীতিরসের মূর্ছনাও তাঁর কবিতায় এক অপরূপ সৌন্দর্য সৃষ্টি করে পাঠককে অভিভূত করে। স্বামী বিবেকানন্দ প্রায়শ- ই তাঁর প্রিয় কবি মধুসূদন দত্তের কবিতা আবৃত্তি করতেন গুরুগম্ভীর কন্ঠে।

সন্ন্যাসীনি তাঁর আবেগ অনুভূতিকে ইংরেজি ও বাংলা ভাষায় কবিতা লিখে প্রকাশ করেছেন। সংখ্যায় কম হলেও সেসব কবিতা বাংলা ও ইংরেজি সাহিত্যের সম্পদ । ইতোপূর্বে তাঁর ইংরেজি কবিতা ” কালী দ্য মাদার ” ( Kali The Mother ) কবিতা সম্পর্কে বিস্তৃত আলোচনা করেছি ।

আজ আমরা স্বামীজির ” নাচুক তাহাতে শ্যামা ”( Nachuk Tahate Shyama) বাংলা কবিতাটি সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করবো যার ইংরেজি ভার্সনের ব্যাখ্যা আগের পোস্ট – এ করেছি । বলাবাহুল্য ইংরেজি অনুবাদটি স্বামী জি নিজেই করেছিলেন।

এ প্রসঙ্গে বলে রাখা ভালো যে, নিবেদিতার কালী সম্পর্কে ধারনা স্বামীজির কাছ থেকেই অন্বিষ্ট হয়েছিল। স্বামী বিবেকানন্দ এ সম্পর্কে তাঁকে প্রভাবিত করেছিলেন বলা অযৌক্তিক হবে না। আমরা পরে নিবেদিতার কালী সম্পর্কে ধারনা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করবো। তিনি কালী সম্পর্কে একটি বক্তৃতা দিয়েছিলেন, মা তাঁর রচনাবলীর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। 

” নাচুক তাহাতে শ্যামা ” ( Nachuk Tahate Shyama ) কবিতাটি ১৯০৪ খিষ্টাব্দে  ‘ বিবেকোদয়ম্ ‘ পত্রিকায় দুই পর্বে প্রথম প্রকাশিত হয়। পরবর্তীকালে” দ্য কমপ্লিট ওয়ার্কস্ অফ্ স্বামী বিবেকানন্দ ”  গ্ৰন্থের দ্বিতীয় খণ্ড – এ কবিতাটির ইংরেজি অনুবাদটি প্রকাশিত হয়। বাাংলা  স্বামী বিবেকানন্দের বাণী ও রচনা গ্ৰন্থের ষষ্ঠ খন্ডে মূল বাংলা কবিতাটি প্রকাাশিত  হয় ।

শ্যামা বা কাালীর প্রতি আত্মনিবেদন প্রকাশিত হয়েছে এই কবিতায় । কবির্মনিষী বিবেকানন্দ অসাধারণ মুন্সিয়ানায় প্রকৃতির পটভূমিকায় মানবমনের স্বরূপটিকে তুলে ধরতে চেয়েছেন। এবং এই প্রসঙ্গে বিশ্বজননী কালীর স্বরূপটিকেও ব্যক্ত করেছেন। দুঃখ – যন্ত্রনা – মৃত্যর অন্ধকারের মধ্য দিয়েই যে জীবনসংগ্রাম সেকথাও কবি বিবেকানন্দ বলতে চেয়েছেন।

আমরা সাধারণত সহজ স্বাভাবিক আনন্দঘন জীবনযাত্রা আকাঙ্ক্ষা করি । কিন্তু সন্ন্যাসী-কবি সহজ জীবনের আবেদনকে প্রত্যাখ্যান করে জীবনের কঠিন সমস্যাগুলির মুখোমুখি হয়ে সেগুলির সমাধানের মাধ্যমে জীবনের সুখ ও শান্তি আনার কথা বলেছেন।


সর্বমোট পাঁচটি স্তবকে প্রলয়ঙ্করী বা ভয়ঙ্করী মায়ের স্বরূপটিকে তুলে ধরতে চেয়েছেন নাচুক তাহাতে শ্যামা ( Nachuk Tahate Shyama) কবিতায়। প্রথম স্তবকে প্রকৃতির স্নিগ্ধ শ্যামল শোভন রূপের অসাধারণ বর্ণনা ।

“ফুল্ল ফুল সৌরভে আকূল মত্ত অলিকূল / গুঞ্জরিছে আশে পাশে/ শুভ্র শশী যেন হাসিরাশি , মত স্বর্গ বাসী / বিতরিছে ধরাবাসে ।।


বেশ কয়েকটি চরণে প্রকৃতির অপরূপ সৌন্দর্যকে বাণীরূপ দিয়েছেন অসাধারণ উপমার পর উপমা সাজিয়ে। মলয়-পবন , নদনদী যেন হাসিরাশি , ফেনময়ী নির্ঝরণী , স্বরময় পতত্রিনিশয় শোনায় সোহাগ বাণী , চিত্রকর তরুণ ভাস্কর , স্বর্ণতুলিকর ছোঁয় মাত্র ধরাপটে – প্রভৃতি শব্দচিত্র বা বাকপ্রতিমা ব্যবহার করে প্রকৃতি মায়ের সুন্দর রূপের বর্ণনা দিয়েছেন।

দ্বিতীয়ত, কবি প্রকৃতির স্নিগ্ধ রূপের ঠিক বিপরীত চিত্র এঁকেছেন। প্রকৃতির এমন ভয়াল চিত্র এঁকে তিনি জীবনের ও প্রকৃতি মায়ের ভয়ংকর দিকের ইংগিত দিয়েছেন।

অন্ধকার উগরে আঁধার, হুহুঙ্কার শ্বসিছে প্রলয়বায়ু , রক্তকায় করার বিজলীজ্বালা , ফেনময় গর্জি মহাকায় , উর্মিধায় লঙ্ঘিতে পর্বতচূড়া, ঘোষে ভীম গম্ভীর ভূতল –  প্রভৃতি চিত্রকল্প ব্যবহার করে কবি প্রকৃতির ভয়ংকরী স্বরূপটিকে কাব্যরূপ দিয়েছেন।

শুধু বসন্ত মলয় বায়ু নয়, প্রকৃতির রক্তকায় মহাকালী রূপটিকেও কবি দেখিয়েছেন, সাধারণত আমরা সচরাচর ভাবি না। প্রথম ও দ্বিতীয় স্তবক দুটিতে প্রকৃতির দুই ভিন্নরূপ এঁকে কবি বস্তুত বলতে চেয়েছেন – জীবনসাধনার পথে এই প্রলয়ঙ্করী জীবনপথ ধরেই সত্য সুন্দর ও জীবনানন্দ পেতে হবে। ভয়ংকর পরিবেশে শ্যামা তাঁর প্রলয়ঙ্করী নাচটি নাচেন ।

উল্লেখ্য, এখানে কবি একটি দৃশ্যময় বর্ণনা ও সাংকেতিক প্রতিকের সাহায্যে আমাদের সামনে জগৎ ও জীবনের এই বিশেষ সত্যটি তুলে ধরেছেন। 


তৃতীয় স্তবকে আবার স্নিগ্ধ সুমধুর চিত্র । শোভাময় মন্দির – বাড়িঘর , নীলাভ হ্রদ , সেখানে বিচরণশীল কুবলয় শ্রেণী, শ্রুতিপথে বীণার ঝঙ্কার , বাসনা বিস্তার , রাগ – অভিমান, ব্রজের লীলা , গোপীদের তপ্তশ্বাসযুক্ত অশ্রুরাশি , নীলোৎপল দুটি আঁখি , ইত্যাদি শব্দবন্ধের মধ্য দিয়ে জীবনের রোমান্টিক দিকটি প্রকাশিত।

প্রমময় জীবনের এমন চিত্র অসাধারণ মুন্সীয়ানায় ফুটিয়ে তোলার কারন এই যে , মানুষ সাধারণত এমন জীবনেরই স্বপ্ন দেখে। কিন্তু মানুষের জীবন সংগ্রাম ময়। 


 • The Destructive Form Of Nature : Nachuk Tahate Shyama

চতুর্থ স্তবকটির দৈর্ঘ্য অন্যান্য স্তবকের তুলনায় অনেকটাই বড় । ২৪ টি পংক্তি তথা ৪৮ টি চরণবিশিষ্ট। তৃতীয় স্তবকের ঠিক বিপরীত ভাব ও রসের কথা এখানে চিত্রিত। প্রকৃতি মায়ের ভয়াল রূপের বর্ণনা। যুদ্ধের দামামা বাজিয়ে শ্যামা মায়ের আগমন।

” ডাকে ভেরী, দামামা, বীর দাপে কাঁপে ধরা, বব- বব ব্ম্ তোপ , ভীম রণস্থল, পৃত্থিতল কাঁপে থরথর, ঝরে রক্তধারা, বীরমদে মাতোয়ারা –

প্রভৃতি শব্দচিত্র দিয়ে জীবনের কঠিন রূঢ় ভয়াল রুদ্র রূপটি উপস্থাপিত করেছেন। পাশাপাশি আমাদের মনের স্বপ্ন – সুখ – আকাঙ্ক্ষা ইত্যাদি সহজ সরল স্বাভাবিক চাহিদাগুলোর কথাও ব্যক্ত করেছেন। অসাধারন কাব্যময়তায় সন্ত কবি বর্ণনা করেছেন : 


” দেহ চায় সুখের সঙ্গম, চিত্ত – বিহঙ্গম সঙ্গীত – /  সুধার ধার । / মন চায় হাসির হিন্দোল , প্রাণ সদা রোল রাইতে ,/ দুঃখের পার ।। ” 

• The Conscience of Common People: Nachuk Tahate Shyama

মানুষের স্বাভাবিক মানসিক স্বরূপটিকে কবি গভীরভাবে নির্দেশ করেছেন –

  ” সুখের জন্য সবাই কাতর , কেবা সে পামর দুঃখে / যার ভালবাসা ? ” শত দুঃখের মধ্যেও মানুষ আশার – মরীচিকায় ঘুরে মরে। কেউ চায় না মৃত্যুরূপী এলোকেশী – কে। ” রুদ্রমুখে সবাই ডরায় ” – একথা কবি বলেছেন। কিন্তু সন্ন্যাসী-কবি মৃত্যু- রূপা কালী বা প্রকৃতিকেই আহ্বান জানিয়েছেন –

” সত্য তুমি মৃত্যরূপা কালী , সুখ বনমালী তোমার / মায়ার ছায়া । / করালিনি , কর মর্মচ্ছেদ , হোক মায়াভেদ , / সুখস্বপ্ন দেহে দয়া ।।
 মৃত্যু , রোগ , মহামারী – রূপী এ জগৎ মায়েরই দান । তাই মা দানবজয়ীও । ” মৃত্যু তুমি , রোগ মহামারী বিষকুম্ভ ভরি , বিতরিছ /জনে জনে “

• Shyama Dances in destruction: Nachuk Tahate Shyama ( adityaashram.org)

 শেষ স্তবক খুবই তাৎপর্যপূর্ণ । ভয়ংকর পরিবেশেই শ্যামা তাঁর প্রলয়ঙ্করী নাচটি নাচেন। তিনি সকল অবস্থার নিয়ন্ত্রক । শ্যামা ভালো – মন্দ , শান্ত – ভয়ংকর – এই উভয় অবস্থার -ই নিয়ন্ত্রক । সুতরাং বীর হৃদয়ের পূজা সংগ্ৰামের মধ্য দিয়েই –

 “ পূজা তাঁর সংগ্ৰাম  অপার , সদা পরাজয় তাহা না / ডরাক তোমা / চূর্ণ হোক স্বার্থ সাধ মান , হৃদয় শ্মশান / নাচুক তাহাতে শ্যামা ” ।।

মহৎ জীবনের সাধনা মসৃন নয়। দূর্গম পথ চলা তার সাথী । সাধারণ জীবনচর্যা  সাধকের জীবন নয় । কঠিন, দুর্গম পথ ধরেই তাকে চলা । মহৎ জীবনের সাধনা সংগ্ৰাম মুখর । সংগ্ৰাম     সংগ্ৰাম     সংগ্ৰাম ।। 

Read more : SWAMI VIVEKANANDA ON NARADA-BHAKTI-SUTRA

“How to Become free”- as advised by Swami Vivekananda

RAJA YOGA AS DEFINED BY SWAMI VIVEKANANDA

SWAMI VIVEKANANDA ON NARADA-BHAKTI-SUTRA

SWAMI VIVEKANANDA ON NARADA-BHAKTI-SUTRA : THE PATH TO REACH DESTINATIONPosted onFebruary 12, 2020 by Sushil Rudra

Swami Vivekananda in Meditation

Swami Vivekananda discussed about Narada Sutra in America in 1895. The main discussion was about the essence of Narada Bhakti.THE SUTRAS :The Sutras are :1. Bhakti is intense love for God.2. It is the nectar of love,3. Getting which man becomes perfect, immortal, and satisfied for ever,Explanation:Swami Vivekananda’s love , Bhuddha’s love , Sree Ramkrishna’s love – all have no personal desire . Their selfless love is eternal.Pure love makes a man perfect.Radha & Krishna’s love is immortal.Selfless love is immortal what we find in Krishna and Radha.4. Getting which man desires no more, does not become jealous of anything, does not take pleasure in vanities,5. Knowing which man becomes filled with spirituality, becomes calm , and finds pleasure only in God .6. It can not be used to fill any desire , itself being the check to all desired.7. Sannyasa is giving up both the popular and the spiritual forms of worship.But it’s not for all. Sannyasa is the best means to achieve perfection , but it’s not for the common people. Remuneration is not possible for a man who has deep attractions in the worldly pleasure.8. The Bhakti-Sannyasin is the one whose whole soul goes unto God , and whatever militates against love to God , he rejects.9. Giving up all other refuge, he takes refuge in God.10. Scriptures are to be followed as long as one’s life has not become firm.11. Or else there is danger of doing evil in the name of liberty.12.When love becomes established, even social forms are given up , except those which are necessary for the preservation of life.13. There have been many definitions of love, but Narada gives these as the signs of love; When all thoughts, all words, and all deeds are given up unto the Lord, and the least forgetfulness of God makes one intensely miserable, then love has begun.14. As the Gopis had it-15. Because, although worshipping God as their lover , they never forgot his God- nature ;16. Otherwise they would have committed the sin of unchastity.

17. This is the highest form of love, because there is no desire for reciprocity, which desire is in all human love. Posted on February , by Sushil Rudra

Swami Vivekananda on Narada Bhakti Sutra /image: kalpatarurudr!.org/jpg

Swami Vivekananda discussed Narada Sutra in America in 1895. The main discussion was about the essence of Narada Bhakti. Here we are going to discuss Swami Vivekananda on Narada Bhakti Sutra.

Read more:1. Swami Vivekananda’s Inspired Talks 2. Swami Vivekananda’s Mission To West

The Sutras are :

1. Bhakti is intense love for God.

2. It is the nectar of love,

3. Getting which man becomes perfect, immortal, and satisfied for ever,

Explanation:

Swami Vivekananda’s love , Bhuddha’s love , Sree Ramkrishna’s love – all have no personal desire . Their selfless love is eternal.

Pure love makes a man perfect.

Radha & Krishna’s love is immortal.

Selfless love is immortal what we find in Krishna and Radha.

4. Getting which man desires no more, does not become jealous of anything and does not take pleasure in vanities,

5. Knowing which man becomes filled with spirituality, becomes calm and finds pleasure only in God. Hence, they live only for God.

6. It can not be used to fill any desire , itself being the check to all desired.

7. Sannyasa is giving up both the popular and the spiritual forms of worship. Therefore, they are different from the common people’s spirituality.

But it’s not for all. Sannyasa is the best means to achieve perfection, but it’s not for the common people. Therefore, renunciation is not possible for a man who has deep attractions in worldly pleasure.

8. The Bhakt-Sannyasin is the one whose whole soul goes unto God, and whatever militates against love to God, he rejects. So It is pure love. Ramkrishna projected this love for God.

9. Giving up all other refuge, he takes refuge in God.

10. Scriptures are to be followed as long as one’s life has not become firm. So initially scripture will help us to forward a step in perfection.

11. Or else there is danger of doing evil in the name of liberty.

12.When love becomes established, even social forms are given up , except those which are necessary for the preservation of life.

13. There have been many definitions of love, but Narada gives these as the signs of love.

Explanation: When all thoughts, all words, and all deeds are given up unto the Lord, and the least forgetfulness of God makes one intensely miserable, then love has begun. Therefore, it is divine love.

14. As the Gopis had it- they had sacrificed themselves whole-heartedly. So they have an intense love to Lord Krishna.

15. Because, although worshipping God as their lover , they never forgot his God- nature ;

16. Otherwise they would have committed the sin of unchastity.

17. Hence, this is the highest form of love, because there is no desire for reciprocity, which desire is in all human love.

“How to Become free”- as advised by Swami Vivekananda

01.06.2021

” This is the sky where I am free. I am free in the light or in the eliminated world, on the green grasses and the leaves of the tree.” I would like to live in a world where there are no chains. But how to become free from the shackles of Maya? We here try to discuss it with the philosophy of Swami Vivekananda.

He wasn’t a simple monk. He was an eminent philosopher and great scholar also. Although he sacrificed his whole life for the upliftment of mankind and never want to quit from this real-world like a romantic poet, but unlike Buddha, he knew that this world is full of misery and pain. So he didn’t express that this world is painful so let leave this world.

What he did for the people was to provide a purposeful life. According to him, all things in nature work according to law. Nothing is excepted . This law controls and governs our mind, as well as everything in external nature.

External and internal nature, mind and matter, are in time and space and are bound by the law of causation. The freedom of the mind is a delusion. So how can the mind be free when it is under a law?

He told about karma, that the law of karma is the law of causation. We must become free. We are free; the work is to know it. So we have to give up all slavery and also all bondage of whatever kind.

Not only we give up all bondage to earth and everything and everyone on earth, but also to all ideas of heaven and happiness.

The way to reach in full sovereignty and freedom is very tough. It’s very difficult to give up all desires. We are bound to earth by desire. Even we have a desire in heaven and to God. So in this respect, we are slave. Vivekananda expressed :

” A slave is a slave whether to man or to God.”

The idea of heaven is something daydreaming. You don’t think a life of eternal happiness. It’s also a daydream. Life is perhaps a combination of joy and woe. Joy and woe are woven in fine – once a English poet expresses it about life. Our old scriptures also told the same words ” Sukhani dukhani c chkrobat poribortante”.

So where there is happiness there must follow unhappiness sometimes. Wherever there is pleasure there must be pain. This is certain, every action has its reaction somehow.

Here Swami Vivekananda uttered the same words which was Buddha. What he told? To him, the idea of freedom is the only true idea of salvation. It is freedom from everything. It’s freedom from senses, whether of pleasure or pain, from good as well as evil.

Besides, he told more than that, that we will be free from death and will get free from death, and also we must try to make our lives free . To him, life is but a dream of death. So we have to get away from life if we would be rid of death.

This is only way to reach beyond death. We are ever free if we would only believe it, only have faith enough. In a brief, we are soul, free and eternal, ever free. If you have a deep faith in it, you are free that moment.

Read more: RAJA YOGA AS DEFINED BY SWAMI VIVEKANANDA

SWAMI VIVEKANANDA: THE POET & HIS POEMS / kalpatarurudra.org